জঙ্গি আস্তানায় অভিযান শেষ, নারীসহ নিহত ২: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

0
93

২৪ ডিসেম্বর, CNND :রাজধানীর পূর্ব আশকোনার জঙ্গি আস্তানায় পুলিশের অভিযানেরমুখে এক নারীসহ দুই জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এছাড়া নারী জঙ্গির ‘আত্মঘাতী বিস্ফোরণে’ আহত শিশুটিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। দুপুরে ১টার দিকে বোরকা পরা ওই নারী শিশুটিকে নিয়ে বেরিয়ে এসে তার দেহের সঙ্গে বাঁধা বিস্ফোরকের বিস্ফোরণ ঘটান বলে কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের কর্মকর্তা অতিরিক্ত উপ কমিশনার মো. ছানোয়ার হোসেন জানান।আজ বিকাল পৌনে ৪টায় ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। এরপর তিনি সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেন। এসময় তিনি বলেন, ‘আশকোনার জঙ্গি আস্তানায়অভিযান শেষ হয়েছে। এ অভিযানে দু’জন নিহত, একজন আহত ও চারজন আত্মসমর্পণ করেছে। নিহতরা হচ্ছে জঙ্গি সুমনের স্ত্রী, তিনি আত্মঘাতী বিস্ফোরণে নিহত হয়েছেন। আরেকজন আজিমপুরে নিহত জঙ্গিদের অর্থদাতা তানভীর কাদেরীর ছেলে আবির ওরফে আদর। আহত শিশুটি আজিমপুরে নিহতজঙ্গি ইকবালের ছেলে আবির। এছাড়াও চার আত্মসমর্পণকারী হচ্ছে রূপনগরে নিহত মেজর জাহিদেরস্ত্রী শিলা ও তার সন্তান এবং জঙ্গি মুসার স্ত্রী তৃষা ও সন্তান।’জঙ্গি মুসার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘মুসা নিজেই ইমতিয়াজ পরিচয়ে বাসা ভাড়া নেয়। সে হয়ত চলে গেছে, অথবা বাসার বাইরে ছিল। আমরা খুব দ্রুতই তাকে ধরে ফেলবো।’তিনি আরও বলেন, ‘অভিযান শেষ হলেও বাড়িটিতে প্রচুর পরিমাণে গ্রেডেন, বোমা ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে বলে এখন বিভিন্ন বাহিনীর বোমা নিষ্ক্রিয়করণ দল সেখানে কাজ করছে।’স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী যাওয়ার পর বাড়িটিতে পুলিশের বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট ঢুকেছে। এরপর ক্রাইম সিন ইউনিটও সেখান থেকে আলামত সংগ্রহ করবে বলে জানা গেছে। শুক্রবার মধ্যরাত থেকে রাজধানীর আশকোনায় জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে ‘সূর্য ভিলা’ নামের তিনতলা একটি বাড়ি ঘিরে রাখে আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী। এক পর্যায়ে শনিবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে সেখান থেকে চারজন আত্মসমর্পণ করেন।দক্ষিণ খানে হজ ক‌্যাম্পের কাছে সূর্যভিলা নামে তিন তলা ওই বাড়িটি ঘিরে শনিবার ভোররাতে অভিযান শুরু করে পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের সদস‌্য। পুলিশের আহ্বানে সাড়া দিয়ে সকালে চারজন আত্মসমর্পণ করলেও এক নারী, এক কিশোর ও নারী শিশুটি ভেতরে থেকে যায়।ওই নারীকে উদ্ধার করা না গেলেও শিশুটিকে আহত অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায় পুলিশ। চার বছরের শিশুটিকে দুপুর ২টায় হাসপাতালে নিয়ে যান ক্যান্টনমেন্ট থানার এসআই মাসুদুর রহমান।ঢামেক পুলিশ ফাঁড়ির এসআই মো. বাচ্চু মিয়া বলেন, ‘শিশুটির শরীরের বিভিন্ন স্থানে স্প্লিন্টারের জখম রয়েছে। বর্তমানে সে হাসপাতালের জরুরি বিভাগের

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here