রোহিঙ্গাদের জন্য দ্বিতীয় পর্যায়ে ভারতের ত্রাণসামগ্রী গ্রহণ

রোহিঙ্গাদের জন্য দ্বিতীয় পর্যায়ে ভারতের ত্রাণসামগ্রী গ্রহণ

রোহিঙ্গাদের জন্য দ্বিতীয় পর্যায়ে ভারতের ত্রাণসামগ্রী গ্রহণ

📅09 May 2018, 23:13

০৯ মে, CNBD : শুধু ত্রাণ সহায়তা নয় রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে আর্ন্তজাতিকভাবে চাপ সৃষ্টি করতে ভারতের প্রতি অনুরোধ জানিয়ে ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনামন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বলেছেন, একমাত্র আর্ন্তজাতিক মহলের চাপ প্রয়োগের মাধ্যমেই ১২ লাখ রোহিঙ্গা নাগরিকদের নিজের দেশে ফেরত পাঠানো সম্ভব হবে।

আজ বুধবার সকালে চট্টগ্রাম বন্দরে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের জন্য ভারতের ত্রাণসামগ্রী গ্রহণকালে তিনি এ অনুরোধ জানান।

এসময় মন্ত্রী বলেন, সাহায্য দিয়ে রাহিঙ্গা সমস্যার স্থায়ী সমাধান হবেনা। এর স্থায়ী সমাধান করতে হবে। সাহায্যের পাশাপাশি তাদেরকে ফিরিয়ে নেয়ার জন্য মায়ানমারকে আর্ন্তজাতিকভাবে মায়ানমারের উপর চাপ সৃষ্টির জন্য অনুরোধ জানান তিনি।

এসময় মন্ত্রী বলেন, ভারত বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু। ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধে তারা বাংলাদেশকে শুধু সাহায্য করেনাই। সে সময় ভারতীয় হাজার হাজার সৈনিক বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের জন্য জীবন উৎসর্গ করেছিল। বাংলাদেশ সরকার ভারতের জনগন ও সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞ। শরনার্থী কি তা ভারত সরকার বুঝে। ভারত বাংলাদেশ এক অপরের বন্ধু। এ জন্য পরস্পর পরস্পরের বিপদে এগিয়ে আসতে হবে।

মায়া বলেন,এ পর্যন্ত ১২ লাখ রোহিঙ্গা মায়ানমার থেকে বাংলাদেশে এসেছে। শত সীমাবদ্ধতার মধ্যেও বর্তমান সরকার এসব রোহিঙ্গা নাগরিকদের আশ্রয় দিয়েছে। ভারতসহ বিশে^র প্রায় সব দেশ এ জন্য সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন।

এর মধ্যে ১১ লাখ ১২ হাজার ৩০৮ জন হাজার রোহিঙ্গাকে রেজিস্ট্রেশন করা হয়েছে। তাদের বসবাসের জন্য ৩০টি ক্যাম্প স্থাপন করা হয়েছে। এর মধ্যে ৩৬ হাজার ৩৭৩ জন এতিম শিশুকে চিহ্নিত করা হয়েছে। ৯ কিলোমিটার এলাকা বিদ্যুতায়ন এবং ১৩ কিলোমিটার রাস্তা নির্মাণসহ ১০ কিলোমিটার খাল খনন করা হয়েছে রোহিঙ্গাদের বসবাসের সুবিধার জন্য।

আসন্ন বর্ষা মৌসুমে পাহাড় ধস ঠেকাতে পাহাড়ের পাদদেশ থেকে ইতিমধ্যে প্রায় ৮ থেকে ১০ হাজার পরিবারকে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে ৫০ হাজার পরিবারকে অন্যত্র সরিয়ে নেয়া হবে বলে জানান তিনি। তিনি বলেন, এ মাসের মধ্যে মোট ২৫ হাজার পরিবারকে সরিয়ে নেয়া সম্ভব হবে। মন্ত্রী এসব রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠির স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে ভারত থেকে দুটি মেডিকেল টিম পাঠানোর অনুরোধ জানান। মন্ত্রী বলেন অনেকে বড় বড় কথা বলেন। কিন্তু কাজের সময় তাদেরকে কাছে পাওয়া যায়না। এদিকে মিয়ানমার নাগরিকদের জন্য ভারত সরকারের দ্বিতীয় দফায় পাঠানো ৩৭৩ মেট্রিকটন ত্রানসামগ্রী হস্তান্তর করা হয়েছে।

আজ বুধবার সকালে চট্টগ্রাম বন্দরের ২ নম্বর জেটিতে ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনামন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়ার কাছে এসব ত্রাণসামগ্রী আনুষ্ঠানিকভাবে হস্তান্তর করেন ভারতীয় হাইকমিশনার হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা।

ভারত সরকার ও ভারতীয় জনগণের পক্ষ থেকে রোহিঙ্গাদের জন্য মানবিক সহায়তা হিসেবে পাঠানো ত্রাণসামগ্রীর মধ্যে রয়েছে ৫০ হাজার রেইনকোট, ৫০ হাজার জোড়া গামবুট, ৪৫ টন শিশুখাদ্য, ১০০ টন গুঁড়োদুধ ও ১০০ টন শুঁটকি,এবং কেরোসিন। এর আগে ভারতের নৌ বাহিনীর জাহাজ আইএনএস ঐরাবত’ কমান্ডার এ অশোকের নেতৃত্বে ত্রাণসামগ্রী নিয়ে গত ৫ মে বিশাখাপত্তম বন্দর থেকে রওয়ানা দিয়ে গতকাল মঙ্গলবার চট্টগ্রাম বন্দরে পৌঁছে।

এসময় ভারতীয় হাই কমিশনার হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা বলেন, ভারত সব সময় বাংলাদেশের সংকটে তাৎক্ষনিকভাবে সারা দিয়েছে। এরই অংশ হিসেবে রোহিঙ্গা নাগরিকদের জন্য এর আগেও ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রী সুষমা স্বরাজ অপারেশান ইনসানিয়াৎ এর মাধ্যমে ত্রান সামগ্রী পাঠিয়েছিল। এ ছাড়া এক মিলিয়ন লিটার কেরোসিন এবং ২০ হাজার রান্নার চুলা নিয়ে আরো ত্রানের চালান শীঘ্রই বাংলাদেশে আসবে বলে জানান হাই কমিশনার।

তিনি বলেন রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে বাংলাদেশ সরকার এবং এদেশের জনগন বিরাট একটা চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছেন। বাংলাদেশের এ মহৎকাজ আর্ন্তজাতিক সম্প্রদায়ের স্বীকৃতি এবং সমর্থন পাবার দাবিদার। তিনি বলেন ভার বাংলাদেশের সম্পর্কের ভিত্তি,বিশ্বাস,বন্ধুত্ব ও শহীদদের আত্মত্যাগ ।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব শাহ কামাল, শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মোহাম্মদ আবুল কালাম, চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক মো. ইলিয়াস হোসেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. হাবিবুর রহমান, চট্টগ্রাম বন্দরের সদস্য (প্রশাসন ও পরিকল্পনা) মো. জাফর আলম, রাউজান উপজেলা চেয়ারম্যান এহছানুল হায়দার চৌধুরী বাবুল প্রমুখ

No Comments

No Comments Yet!

You can be first one to write a comment

Leave a comment